বাংলাদেশে আশার আলো দেখাছে জয়-তামিমের ব্যাটে

0
118
বাংলাদেশে আশার আলো দেখাছে জয়-তামিমের ব্যাটে

প্রায় চার সেশন রোদে জ্বলেছেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তীব্র গরমে লড়েছেন প্রতিপক্ষ বোলারদের সামনে।

শেষে এসে তিনি পুড়লেন আক্ষেপের তাপে। মাত্র এক রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরিটা করতে পারলেন না, দলও ছুঁতে পারল না নিজেদের লক্ষ্য

নাঈম হাসানের বলে উড়িয়ে মারতে গিয়েছিলেন, শটটা হয়নি ঠিকঠাক। স্কয়ার লেগে দাঁড়িয়ে থাকা সাকিব আল হাসানের সহজ ক্যাচ হয়েই ফিরতে হয়েছে ম্যাথিউসকে। তার আগে আরও পাঁচ ব্যাটারকে সাজঘরের পথ দেখিয়েছেন নাঈম। দেড় বছর পর একাদশে ফিরে জানান দিয়েছেন নিজের সামর্থ্যের।

তাতে ৩৯৭ রানেই আটকানো গেছে শ্রীলঙ্কাকে। দ্বিতীয় দিনের শেষ বিকেলে নেমে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৭৬ রান করেছে বাংলাদেশ। জয় ৩১ ও তামিম ৩৯ রান নিয়ে টাইগারদের পক্ষে তৃতীয় দিন শুরু করবেন। লঙ্কানদের চেয়ে বাংলাদেশ এখনও পিছিয়ে ৩২১ রানে।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে ৪ উইকেট হারিয়ে ২৫৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে শ্রীলঙ্কা। শুরুতেই অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে সাজঘরে ফেরানোর সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। কিন্তু উইকেটের পেছনে ক্যাচ ধরেও বুঝতে পারেননি লিটন দাস, করেননি আবেদনও!

দিনের প্রথম সাফল্য পেতে পরে অনেকটা সময় অপেক্ষা করতে হয় বাংলাদেশকে। দিনেশ চান্ডিমালের শট নির্বাচনের দায়টাই তাতে বেশি। আগের দিন দুই উইকেট নেওয়া নাঈমের অফ স্টাম্পের বলকে রিভার্স সুইপ করতে যান তিনি। ওই বল গিয়ে লাগে তার প্যাডে। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি চান্ডিমাল। ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৬৬ রান করেন এই ব্যাটার। ভেঙে যায় ম্যাথিউসের সঙ্গে তার ১৩৬ রানের জুটি।

এরপর দ্রুতই আরও তিন উইকেট নিয়ে খেলায় ফিরে বাংলাদেশ। নিরোশান ডিকভেলা, রামেশ মেন্ডিস ও লাসিথ এম্বোলদোনিয়ার কেউই পারেননি দুই অঙ্কের কোটায় ব্যক্তিগত সংগ্রহ নিতে। ৪ উইকেটে ৩১৯ রান থেকে ৩২৮ রানেই আট উইকেট হারায় লঙ্কানরা। কিন্তু বাংলাদেশের গলার কাটা হয়ে থেকে যান ম্যাথিউস। তাকে শেষদিকে সঙ্গ দেন বিশ্ব ফার্নান্দো।

১৭ রান করলেও ৮৪ বল খেলেন তিনি। যদিও অন্য প্রান্তে ম্যাথিউসকে ফিরিয়ে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের ইতি টেনে দেন নাঈম। ৩৯৭ বল ক্রিজে থেকে ১৯ চারের সঙ্গে ১ ছক্কা হাঁকান তিনি, করেন ১৯৯ রান। বাংলাদেশের পক্ষে নাঈম ৬, সাকিব ৩ ও নাঈম হাসান নিয়েছেন এক উইকেট।

শেষ বিকেলে বাংলাদেশের হয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন মাহমুদুল হাসান জয় ও তামিম ইকবাল। কখনো কখনো নিয়ন্ত্রণ হারালেও দারুণ সব শট খেলেছেন তারা। তাদের জুটিই দ্বিতীয় দিন শেষে এগিয়ে রাখছে বাংলাদেকে। দ্বিতীয় দিনেও এমন ব্যাটিং করে যেতে পারলে, বাংলাদেশ যে অনেকটা এগিয়ে যাবে, তা তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here